পুলিশের চূড়ান্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি

inside-courtফৌজদারি মামলায় অপরাধীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণে কিংবা তাদের বিচার নিশ্চিত করতে যথাযথ তদন্ত কর্মকাণ্ড পরিচালনা করা খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ। একটি নিরপেক্ষ তদন্ত একটি মামলার সত্য ঘটনা যেভাবে বের করে আনতে পারে, একইভাবে পক্ষপাতদুষ্ট একটি তদন্ত মামলার মোড় ভিন্নদিকে ঘুরিয়েও দিতে পারে। সাধারণত ফৌজদারি মামলায় অপরাধীদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্র নিজেই বাদি হয়ে থাকে এবং সন্দেহভাজন অপরাধ সম্পর্কে পুলিশই তদন্ত করে থাকে। এ কারণে একটি নিরপেক্ষ ও স্বাধীন তদন্ত পরিচালনায় পুলিশের দায়িত্ব অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। Continue reading

Advertisements

কখন কোম্পানি, কখন অংশীদারি কারবার?

ajd_splashব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কাঠামো সাধারণত তিন ধরনের- ব্যক্তি মালিকানাধীন ব্যবসা (প্রোপ্রাইটরশিপ), অংশীদারি কারবার (পার্টনারশিপ) এবং কোম্পানি। কোনো ব্যবসায়িক কারবারে যখন একজন মাত্র মালিক থাকেন, তখন ব্যক্তি মালিকানাধীন ব্যবসা বা প্রোপ্রাইটরশিপ গঠন করা হয়। ব্যবসায়ে একাধিক মালিক থাকলে গঠন করা হয় অংশীদারি কারবার (পার্টনারশিপ) কিংবা কোম্পানি। এখন একাধিক মালিকানার ক্ষেত্রে কখন অংশীদারি কারবার আর কখনো বা কোম্পানি গঠন করা যেতে পারে? কোনটি তুলনামূলকভাবে বেশি সুবিধাজনক? বিষয়টির সাদামাটা জবাব দেয়া কঠিন। আপনার ব্যবসায়িক কারবার কোম্পানি নাকি অংশীদারি কারবারের অধীনে পরিচালনা করবেন, বিষয়টিতে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য এই দুয়ের মধ্যকার পার্থক্যগুলো বুঝে নেয়া প্রয়োজন। এ পর্যায়ে পার্থক্যগুলো দেখে নেয়া যাক। Continue reading

পারিবারিক আদালত কি শুধু মুসলমানদের জন্য?

ঝুমুর রানী বাড়ি নরসিংদী গ্রামের শিবপুরে। নরসিংদী কলেজে স্নাতক তৃতীয় বর্ষে পড়ার সময় তার বিয়ে হয় জয়দেবের সঙ্গে। বিয়ের প্রথম দুই বছর বেশ ভালোই কাটে জয়দেব-ঝুমুর দম্পতির। কিন্তু এর পর থেকেই তাদের মধ্যে যৌতুকসহ নানা বিষয় নিয়ে কলহ হতো। একপর্যায়ে ঝুমুরকে জোর করে বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হয়। জয়দেব কোনো খোঁজখবর রাখে না তার। এরকম অবস্থায় ঝুমুরের আইনি প্রতিকার কী? ঝুমুর কি পারে পারিবারিক আদালতে মামলা করে দাম্পত্য সম্পর্ক পুনরুদ্ধার করতে? হিন্দু বিবাহিত নারী যে স্বামীর কাছ থেকে ভরণপোষণ পাওয়ার অধিকারী, সেটিও কি পারিবারিক আদালতে মামলা করে ঝুমুর আদায় করে নিতে পারে? নাকি এই আদালত কেবল সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিমদের জন্যই গঠন করা হয়েছে? Continue reading

ফোনে আড়িপাতা ও ব্যক্তিগত গোপনীয়তা

বাংলাদেশ সংবিধানের ৪৩ অনুচ্ছেদে প্রাইভেসি রাইটস বা ব্যক্তির তথ্য সুরক্ষা ও গোপনীয়তা মৌলিক অধিকার হিসেবে স্বীকৃত। ওই অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, আইনের দ্বারা আরোপিত বিধিনিষেধ-সাপেক্ষে প্রত্যেক নাগরিকের যোগাযোগের উপায়ের গোপনীয়তা রক্ষার অধিকার থাকবে। জাতিসংঘের নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকারসংক্রান্ত আন্তর্জাতিক ঘোষণার ১৭ নাম্বার ধারায় বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তির নিজস্ব গোপনীয়, পরিবার, বাড়ি ও অনুরূপ বিষয়কে অযৌক্তিক বা বেআইনি হস্তক্ষেপের লক্ষ্যবস্তু বানানো যাবে না, তেমনি তার সুনাম ও সম্মানের ওপর বেআইনি আঘাত করা যাবে না। এছাড়াও আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ঘোষণা (অনুচ্ছেদ ১২), জাতিসংঘের কনভেনশন অন মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কার্স (অনুচ্ছেদ ১৪) এবং শিশু অধিকার সনদ (অনুচ্ছেদ ১৬)-তে ‘ব্যক্তিগত গোপনীয়তা’কে অধিকার হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। বাংলাদেশ তথ্য অধিকার আইনেও ব্যক্তিগত গোপনীয়তার অধিকারের বিষয়টি সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ রয়েছে। Continue reading

ওয়াকফ সম্পত্তি কি হস্তান্তর করা যায়?

sistemi-allarme-permietrale-casa-mantovaসিরাজপুর গ্রামে হাসনাত তার সম্পত্তির একটি বড় অংশ ওয়াকফ করে গেছেন। ওয়াকফকৃত সম্পত্তির ওপর একটি মসজিদ এবং একটি মাদরাসা রয়েছে। এর বাইরেও প্রচুর সম্পত্তি তিনি ওয়াকফ করেছেন মসজিদ-মাদরাসার ব্যয় নির্বাহের জন্য। ওয়াকফ সম্পত্তির রক্ষণাবেক্ষণের জন্য তিনি আফতাব নামের একজনকে মুতাওয়ালি্ল নিয়োগ করেছিলেন। কিন্তু হাসনাত সাহেবের মৃত্যুর পর মসজিদ কমিটির লোকজন মুতাওয়ালি্লকে ডিঙিয়ে ওয়াকফকৃত সম্পত্তির বেশ কিছু বিক্রি করে দেয়। মুতাওয়াল্লি আফতাব সাহেব তাদের এই বিক্রয়ে অনুমোদন না দেয়ায় মসজিদ কমিটির লোকজন তার বিরুদ্ধে ক্ষেপে ওঠে এবং তাকে অপসারণের হুমকি দেয়। এখন প্রশ্ন হলো ওয়াকফ সম্পত্তি কি বিক্রি করা যায়? ওয়াকফ সম্পত্তির বিক্রয়ে মুতাওয়াল্লি কতটা ভূমিকা রাখতে পারেন? Continue reading